BENGALI PAGE 7

ਆਦੇਸੁ ਤਿਸੈ ਆਦੇਸੁ ॥
আদেসু নিসো আদেসু।।
aadays tisai aadays.
Let us salute that Almighty God,
আমি তাঁর সম্মুখে মাথা নত করি।

ਆਦਿ ਅਨੀਲੁ ਅਨਾਦਿ ਅਨਾਹਤਿ ਜੁਗੁ ਜੁਗੁ ਏਕੋ ਵੇਸੁ ॥੨੯॥
আদি অনীলু অনাদি অনাহতি জুগু জুগু একো বেসু।।২৯।।
aad aneel anaad anaahat jug jug ayko vays. ||29||
Who is eternal, immaculate, without beginning, indestructible and unchanging through the ages.
সুতরাং, মিথ্যার দেওয়াল ফেলে দেওয়ার জন্য সেই আকালপুরখকে প্রণাম করো। সেই আকালপুরখ যিনি সর্বদা শুদ্ধ স্বরূপ, যার কোনো শেষ নেই, তিনিই আরম্ভ।

Stanza 30
There is a Hindu belief that there are three deities – one who creates, another who provides, and the third who destroys.
In this stanza, the Guru states that there is only one God who creates, provides, and destroys as he pleases; the whole Universe is functioning under His command. However, it is a wonder that He can see us but we cannot visually see Him

স্তবকঃ ৩০
হিন্দু মতে তিন দেবতা আছে একজন যিনি তৈরি করেন, একজন যিনি পালন করেন একজন যিনি ধ্বংস করেন।এই স্তবকে, গুরু বলছেন যে শুধু একজন ঈশ্বর আছনে যিনি নির্মাণ করেন, অয়ালন করেন এবং ধ্বংস করেন তাঁর মত করে। সমস্ত মহাবিশ্ব তাঁর মত করে চলাচল করে। আশ্চর্যের বিষয় হল এই যে, তিনি আমাদের সবাইকে দেখতে পান আমরা তাঁকে পাইনা।

ਏਕਾ ਮਾਈ ਜੁਗਤਿ ਵਿਆਈ ਤਿਨਿ ਚੇਲੇ ਪਰਵਾਣੁ ॥
একা মাই জুগতি বিআই তিনি চেলে পরবাণু।।
aykaa maa-ee jugat vi-aa-ee tin chaylay parvaan.
According to Hindu belief system, Maya (worldly illusion) mysteriously conceived and gave birth to three sons (deities).
সাধারণভাবে এই ধারনা প্রচলিত আছে যে, মায়ার দ্বারা তিন সন্তান জন্ম নেয়।

ਇਕੁ ਸੰਸਾਰੀ ਇਕੁ ਭੰਡਾਰੀ ਇਕੁ ਲਾਏ ਦੀਬਾਣੁ ॥
ইকু সন্সারী ইকু ভান্দারি ইকু লাই দীবাণু।।
ik sansaaree ik bhandaaree ik laa-ay deebaan.
One is believed to be the Creator of the World; one the Sustainer;and another one, the Destroyer.
তাঁর মধ্যে একজন ব্রহ্মা করলেন সৃষ্টি, একজন বিষ্ণু করলেন পালন, অন্যজন শিব হলে ধ্বংসের প্রতীক।

ਜਿਵ ਤਿਸੁ ਭਾਵੈ ਤਿਵੈ ਚਲਾਵੈ ਜਿਵ ਹੋਵੈ ਫੁਰਮਾਣੁ ॥
জিব তিসু ভাবো তিবো চলাবো জিব হোবো ফুরামণু।।
jiv tis bhaavai tivai chalaavai jiv hovai furmaan.
(However, the fact is that) God Himself is directing these actions as He pleases. and everything happens as He commands.
আসলে আকালপুরখের যেভাবে ভাল লাগে, সেভাবে সে হুকুম দিয়ে চালায় এই সংসার।

ਓਹੁ ਵੇਖੈ ਓਨਾ ਨਦਰਿ ਨ ਆਵੈ ਬਹੁਤਾ ਏਹੁ ਵਿਡਾਣੁ ॥
ওহু বেখো ওনা নদরি ন আবো বহুতা এহু বিডাণু।।
oh vaykhai onaa nadar na aavai bahutaa ayhu vidaan.
He watches over all, but none can see Him. How wonderful this is!
বড়ো আশ্চর্যের হল যে আকালপুরখ সমস্ত জীবকে দেখছে কিন্তু তাঁকে কেউ দেখতে পাইনা।

ਆਦੇਸੁ ਤਿਸੈ ਆਦੇਸੁ ॥
আদেসু নিসো আদেসু।।
aadays tisai aadays.
Let us humbly bow to Him,
আমি তাঁর সম্মুখে মাথা নত করি।

ਆਦਿ ਅਨੀਲੁ ਅਨਾਦਿ ਅਨਾਹਤਿ ਜੁਗੁ ਜੁਗੁ ਏਕੋ ਵੇਸੁ ॥੩੦॥
আদি অনীলু অনাদি অনাহতি জুগু জুগু একো বেসু।।৩০।।
aad aneel anaad anaahat jug jug ayko vays. ||30||
Who is eternal, immaculate, without beginning, indestructible and unchanging through the ages.
সুতরাং, মিথ্যার দেওয়াল ফেলে দেওয়ার জন্য সেই আকালপুরখকে প্রণাম করো। সেই আকালপুরখ যিনি সর্বদা শুদ্ধ স্বরূপ, যার কোনো শেষ নেই, তিনিই আরম্ভ।

Stanza 31
In this stanza, Guru Nanak says that God’s creation and His
treasures are infinite.His system of looking after His creation is flawless.

স্তবকঃ ৩১
এই স্তবকে গুরু নানক বলছেন, আকালপুরখের সৃষ্টি এবং তাঁর ধন ভান্ডার অসীম। সৃষ্টির প্রতি তাঁর দৃষ্টি বাধাহীন।

ਆਸਣੁ ਲੋਇ ਲੋਇ ਭੰਡਾਰ ॥ ਜੋ ਕਿਛੁ ਪਾਇਆ ਸੁ ਏਕਾ ਵਾਰ ॥
আসণু লেই লেই ভান্ডার।। জো কিছু পাইআ সু একা বার।।
aasan lo-ay lo-ay bhandaar. jo kichh paa-i-aa so aykaa vaar.
God is present in the whole universe and the universe is full of His bounties.Whatever bounties He has put in the universe, He has put these once for all.
আকালপুরখের ভাণ্ডার প্রত্যেক ভবনে আছে। যা কিছু দিয়েছেন তা একেবারে দিয়েছেন।

ਕਰਿ ਕਰਿ ਵੇਖੈ ਸਿਰਜਣਹਾਰੁ ॥
করি করি বেখো সিরজণহারু।।
kar kar vaykhai sirjanhaar.
God creates and then looks after His creation.
সৃষ্টির নির্মাতা সৃষ্টি করে তাকে পালন করছেন।

ਨਾਨਕ ਸਚੇ ਕੀ ਸਾਚੀ ਕਾਰ ॥
নানক সচে কী সাচী কার।।
naanak sachay kee saachee kaar.
O’ Nanak, God’s system of sustaining His creation is perfect (flawless).
হে নানক! সদা স্থির আকালপুরখের এই কাজ সর্বদা স্থির।

ਆਦੇਸੁ ਤਿਸੈ ਆਦੇਸੁ ॥
আদেসু নিসো আদেসু।।
aadays tisai aadays.
Let us salute that Almighty God.
আমি তাঁর সম্মুখে মাথা নত করি।

ਆਦਿ ਅਨੀਲੁ ਅਨਾਦਿ ਅਨਾਹਤਿ ਜੁਗੁ ਜੁਗੁ ਏਕੋ ਵੇਸੁ ॥੩੧॥
আদি অনীলু অনাদি অনাহতি জুগু জুগু একো বেসু।।৩১।।
aad aneel anaad anaahat jug jug ayko vays. ||31||
Who is eternal, immaculate, without beginning, indestructible and unchanging through the ages.
সুতরাং, মিথ্যার দেওয়াল ফেলে দেওয়ার জন্য সেই আকালপুরখকে প্রণাম করো। সেই আকালপুরখ যিনি সর্বদা শুদ্ধ স্বরূপ, যার কোনো শেষ নেই, তিনিই আরম্ভ।

Stanza 32
In this stanza, it is stated that meditating on the Name of God with love and devotion is the only way to get closer to Him. Those who imitate such devotees by mechanically repeating God’s Name without sincerity of heart, achieve nothing. They may boast to have gotten closer to God but in actuality end up only enhancing their ego. Ultimately, union with God is achieved only by His Grace.

স্তবকঃ ৩২
এই স্তবকে বলা হয়েছে, প্রেম ও ভক্তির সাথে ঈশ্বরের নামে ধ্যান করলে তাঁর কাছে আসা যায়।যারা যান্ত্রিকভাবে তাঁর নাম গান করে তারা কিছুই পায় না। তারা আশা করে তারা ঈশ্বরকে পাবেন কিন্তু নিজের আত্ম অহংকার ছাড়া কিছুই মেলে না। ঈশ্বরের সাথে মিলন একমাত্র তাঁর ভালবাসায় হওয়া সম্ভব।

ਇਕ ਦੂ ਜੀਭੌ ਲਖ ਹੋਹਿ ਲਖ ਹੋਵਹਿ ਲਖ ਵੀਸ ॥ ਲਖੁ ਲਖੁ ਗੇੜਾ ਆਖੀਅਹਿ ਏਕੁ ਨਾਮੁ ਜਗਦੀਸ ॥
ইক দু জীভা লখ হোহি লখ হোবাহি লখ বীস।। লখু লখু গোড়া আখীঅহিএকু নামু জগদিস।।
ik doo jeebhou lakh hohi lakh hoveh lakh vees.lakh lakh gayrhaa aakhee-ahi ayk naam jagdees.
If one’s tongue becomes hundred thousands and even twenty times more. And if God’s Name is recited millions of times with each tongue.recitation without love and devotion will not get a person any closer.
যদি একটা জিভ থেকে লাখ জিভ হয়ে যায় এবং লাখ জিভ থেকে বিশ লক্ষ জীভ হয়। এই বিশ লক্ষ জিভ দিয়ে আকালপুরখের নাম এক এক লাখ বার বলেও যদি ভাবি আমি তাঁকে পাবো তাহলে তা আমার মিথ্যা অহংকার।

ਏਤੁ ਰਾਹਿ ਪਤਿ ਪਵੜੀਆ ਚੜੀਐ ਹੋਇ ਇਕੀਸ ॥
এতু রাহি পতিপবড়ীআ চড়ীএ হোই ইকীস।।
ayt raahi pat pavrhee-aa charhee-ai ho-ay ikees.
The way to become one with Godis to ascend on the steps that lead to Him which require shedding one’s ego and meditating on Naam with loving devotion.
আকালপুরখের নাম নিয়ে নিজের অহঙ্কার বিসর্জন দিয়ে একের পর এক সিঁড়ি বেয়ে তাঁর সাথে মিলন সম্ভব।

ਸੁਣਿ ਗਲਾ ਆਕਾਸ ਕੀ ਕੀਟਾ ਆਈ ਰੀਸ ॥ ਨਾਨਕ ਨਦਰੀ ਪਾਈਐ ਕੂੜੀ ਕੂੜੈ ਠੀਸ ॥੩੨॥
সুণি গলা আকাস কী কীটা আই রীস।। নানক নদরী পাঈএ কুড়ী কুড়ো ঠীস।।
sun galaa aakaas kee keetaa aa-ee rees.naanak nadree paa-ee-ai koorhee koorhai thees. ||32||
Spiritually ignorant people, after listening about the spiritually awakened people, think that they can also rise to their level by just imitating those. O’ Nanak, union with God can only beobtained by His Grace,all else is false bragging of liars.
উচ্চমার্গের আধ্যাত্মিক আলোচনা শুনে যারা ভাবে তাঁর সাথে ঘনিষ্ট হবে, তাদের নিজস্ব অহংকার বিসর্জন না দিয়ে তারা হল সেই কীট যারা আকাশে ওড়ার স্বপ্ন দেখে।

Stanza 33
In this stanza, the Guru states that everything happens according to God’s Will and we have no power to make things happen our way.We have no control of birth and death. Spiritual knowledge, mental peace, contentment etc. cannot be achieved by our efforts alone. All virtue comes by His Grace. Those who relinquish their egos and remember Him with love in their hearts will receive His Grace.

স্তবকঃ ৩৩
এই স্তবকে গুরু বলছেন, সমস্তকিছু ঈশ্বরের ইচ্ছায় চলে আমাদের কোনো শক্তি নেই আমাদের তাঁকে আমাদের মত চালনা করার। জন্ম ও মৃত্যুতে আমাদের কোন হাত নেই। আমাদের একার ইচ্ছায় আধ্যাত্মিক জ্ঞান, মানসিক প্রশান্তি ইত্যাদি আমরা পেতে পারিনা। সমস্ত কিছুই তাঁর ইচ্ছা। নিজের আত্ম অহঙ্কারকে বিসর্জন দিয়ে প্রেমের সাথে আমাদের হৃদয়ে তাঁকে স্মরণ করলে তাঁর আশীষ পাবো।

ਆਖਣਿ ਜੋਰੁ ਚੁਪੈ ਨਹ ਜੋਰੁ ॥
আখণি জোরু চুপো নহ জোরু।।
aakhan jor chupai nah jor.
We do not have any power to speak or to remain silent
কথা বলা এবং চুপ করে থাকার মধ্যেও আমাদের কোন হাত নেই। এটি ঈশ্বরপ্রদত্ত উপহার।

ਜੋਰੁ ਨ ਮੰਗਣਿ ਦੇਣਿ ਨ ਜੋਰੁ ॥
জোরু ন মঙ্গণি দেণি ন জোরু।।
jor na mangan dayn na jor.
Even receiving or giving charity is beyond our power.
না চাওয়ার সময় আমাদের কিছু করার থাকে না দান করার সময়।

ਜੋਰੁ ਨ ਜੀਵਣਿ ਮਰਣਿ ਨਹ ਜੋਰੁ ॥
জোরু ন জীবণি মরণি নহ জোরু।।
jor na jeevan maran nah jor.
Life and death too are not in our control.
জীবিত থাকা বা মৃত্যুর মধ্যেও আমাদের কোন হাত নেই। আমরা কতদিন বাঁচব তাও আমাদের হাতে নেই।

ਜੋਰੁ ਨ ਰਾਜਿ ਮਾਲਿ ਮਨਿ ਸੋਰੁ ॥
জোরু ন রাজি মালি মনি সোরু।।
jor na raaj maal man sor.
We have no power to control our mind from thoughts of greed and ego that comes from worldly wealth and power
এই রাজত্ব এই বৈভব্যে আমাদের কোন জোর চলে না।

ਜੋਰੁ ਨ ਸੁਰਤੀ ਗਿਆਨਿ ਵੀਚਾਰਿ ॥
জোরু ন সুরতী গিআনি বিচারী।।
jor na surtee gi-aan veechaar.
We have no power to achieve spiritual awakening, knowledge or thinking.
আত্ম জাগ্রত অবস্থায় জ্ঞান এবং বিচার করার অবস্থায় আমরা থাকি না।

ਜੋਰੁ ਨ ਜੁਗਤੀ ਛੁਟੈ ਸੰਸਾਰੁ ॥
জোরু ন জুগতী ছুটো সন্সারু।।
jor na jugtee chhutai sansaar.
We have no power to escape from worldly temptations.
বিশ্বের এই কর্মকান্ড থেকে পালিয়ে যাওয়ার মত আমাদের জন্মগত ক্ষমতা নেই।

ਜਿਸੁ ਹਥਿ ਜੋਰੁ ਕਰਿ ਵੇਖੈ ਸੋਇ ॥
জিসু হাতি জোরু করি বেখো সোই।।
jis hath jor kar vaykhai so-ay.
He (God) alone has the Power in His Hands. He watches over all.
ওই আকালপুরখের হাতে সমস্ত কিছু তিনিই সমস্ত কিছুর পালন কর্তা।

ਨਾਨਕ ਉਤਮੁ ਨੀਚੁ ਨ ਕੋਇ ॥੩੩॥
নানক ওত্তমু নীচু ন কোই।। ৩৩।।
naanak utam neech na ko-ay. ||33||
O’ Nanak, nobody is superior or inferior (we become only what God decides)
হে নানক! নিজে নিজে কোন মানুষ না উত্তম হয় না নীচ হয়।

Stanza 34
In the next four stanzas, the stages of spiritual development are explained:Dharam khand – stage of righteousness, Gian Khand – stage of Divine knowledge, Saram Khand – stage of spiritual effort, Karam Khand – stage of Divine Grace, and Sach Khand – the experience of Union with God. In this stanza, the Guru describes the first stage of spiritual development – Dharam khand.This is the stage of spiritual awakening. Here, a person starts thinking as to why he is here and what is the purpose of life. As one advances in his journey, one discovers that God created this Earth with air, water, seasons, days, nights etc., making it a place very congenial to live in, focus on Him and experience union with Him, thus fulfilling the purpose of life.This is where a person realizes that everybody will be judged according to their deeds and success or failure in achieving the goal of spiritual advancement will be known after one reach God’s Presence.

স্তবকঃ ৩৪
এই স্তবকে গুরু আধ্যাত্মিক উন্নতির প্রথম পর্যায়ের কথা বলেছেন- ধর্ম খন্ড। এই স্তরে আধ্যাত্মিক চেতনা বিকশিত হয়। এখানে একজন মানুষ ভাবতে শুরু করে কেন সে এই পৃথিবীতে এসেছে এবং জীবনের উদ্দেশ্য কি। যখন চেতনা উন্নত হয় তখন সে অবিস্কার করে ঈশ্বর এই পৃথিবীর সৃষ্টি করেছে, জল বাতাস ঋতু দিন রাত ইত্যাদি নিয়ে বাঁচার জন একটা সুন্দর পরিবেশ গড়ে তুলেছে। তাঁকে লক্ষ্য করে, তাঁর সাথে মিলনই হল এই জীবনের উদ্দেশ্য। তখন মানুষ উপলব্ধি করে যে প্রত্যেকের বিচার হয় তাঁর কাজ দিয়ে, তাঁর ভাল মন্দ কাজ দিয়ে।

ਰਾਤੀ ਰੁਤੀ ਥਿਤੀ ਵਾਰ ॥ ਪਵਣ ਪਾਣੀ ਅਗਨੀ ਪਾਤਾਲ ॥
রাতী রুতী থিতী বার।। পবণ পাণী অগনী পাতাল।।
raatee rutee thitee vaar. pavan paanee agnee paataal.
God created nights, days, weeks and seasons; wind, water, fire and the nether regions,
ঈশ্বর এই দিন রাত মাস ঋতু তৈরি করেছেন। তিনি বায়ু, জল, অগ্নি সমস্ত কিছু তৈরি করেছেন।

ਤਿਸੁ ਵਿਚਿ ਧਰਤੀ ਥਾਪਿ ਰਖੀ ਧਰਮ ਸਾਲ ॥
তিসু বিচি ধরতী থাপি রখী ধরম সাল।।
tis vich Dhartee thaap rakhee Dharam saal.
in the midst of all these, He established the earth as a stage for humans to perform righteous deeds for their spiritual growth.
আকালপুরখ পৃথিবীকে ধর্ম প্রচারের স্থান হিসাবে তৈরি করেছেন।

ਤਿਸੁ ਵਿਚਿ ਜੀਅ ਜੁਗਤਿ ਕੇ ਰੰਗ ॥ ਤਿਨ ਕੇ ਨਾਮ ਅਨੇਕ ਅਨੰਤ ॥
তিসু বিচি জীঅ জুগতি কে রঙ্গ।। তিন কে নাম অনেক অনন্ত।।
tis vich jee-a jugat kay rang. tin kay naam anayk anant.
Upon it (earth), He created various species of beings.Their names are uncounted and endless.
রাত, ঋতু, তিথী, বার, বায়ু জল অগ্নি এবং পাতাল ইত্যাদি সমস্ত কিছু নিয়ে এই পৃথিবীতেআকালপুরখ পৃথিবীকে ধর্ম প্রচারের স্থান হিসাবে তৈরি করেছেন। নানা ধরণের নানা নামের প্রাণী বাস করে।

ਕਰਮੀ ਕਰਮੀ ਹੋਇ ਵੀਚਾਰੁ ॥ ਸਚਾ ਆਪਿ ਸਚਾ ਦਰਬਾਰੁ ॥
করমী করমী হৈ বীচারু।। সচা আপি সচা দরবারু।।
karmee karmee ho-ay veechaar. sachaa aap sachaa darbaar.
By their deeds and their actions, they shall be judged. God Himself is True, and True is His court.
এই অনেক নামের জীবদের নিজের নিজের কাজ অনুসারে নির্ণয় হয় তাদের ভাগ্য। আকালপুরখ নিজে সত্য, তাঁর দরবারও সত্য।

ਤਿਥੈ ਸੋਹਨਿ ਪੰਚ ਪਰਵਾਣੁ ॥ ਨਦਰੀ ਕਰਮਿ ਪਵੈ ਨੀਸਾਣੁ ॥
তিথো সোহনি পঞ্চ পরবাণু।। নদরী করমি পবো নীসাণু।।
tithai sohan panch parvaan. nadree karam pavai neesaan.
The honored and chosen ones (spiritually advanced), grace that court.They receive the Mark of Grace from the Merciful God.
সেই দরবারে সন্তরা প্রত্যক্ষভাবে শোভায়মান। তাদের মধ্যে আকালপুরখের আশিষলাভের চিহ্ন দেখা যায়।

ਕਚ ਪਕਾਈ ਓਥੈ ਪਾਇ ॥ ਨਾਨਕ ਗਇਆ ਜਾਪੈ ਜਾਇ ॥੩੪॥
কচ পকাই ওথো পাই।। নানক গইআ জাপো জাই।।
kach pakaa-ee othai paa-ay. naanak ga-i-aa jaapai jaa-ay. ||34||
Success or failure is in terms of spiritual growth and it is judged in God’s presence.O’ Nanak, it is only upon reaching God’s Presence that one discovers if one succeeded or failed.
সংসারে কারোর ছোট বড় কথা কোনো মানে রাখেনা, কাচা পাকার পরখ তো আকালপুরখের দরবারে হবে। হে নানক! আকালপুরখের দরজায় পৌঁচ্ছে এই সব বোঝা যায়।

Stanza 35
This is the second stage of spiritual development – Giaan khand or stage of Divine Knowledge. In this stage, a person realizes that God’s creation is beyond human comprehension; that ours is not the only planetary system, there are many more of them in the Universe. One realizes that there are many earths, suns and moons. One realizes also that God’s powers of creation, provision, and destruction are endless. The effect of this realization is indeed powerful in the one who ascends to this spiritual stage. Such a person is filled with awe and amazement at the vastness of God’s Creation and experiences Divine joy which is beyond description.

স্তবকঃ ৩৫
এটি দ্বিতীয় ধাপ আধ্যাত্মিক বিকাশের। জ্ঞান খন্ড অথবা স্বর্গীয় জ্ঞানের স্তর। এই স্তরে একজন মানুষ অনুভব করে যে ঈশ্বরের সৃষ্টি মানুষের ধারনার বাইরে। এই বিশ্বব্রহ্মান্ডে শুধুর মাত্র আমাদের গ্রহই নয় আরো অনেক আছে। সে অনুভব করে আরো পৃথিবী সূর্য চাঁদ রয়েছে। বুঝতে পারে ঈশ্বরের সৃষ্টি পালন এবং ধ্বংসেরর ক্ষমতা অসীম। এই জঙানের ফলে মানুষের আধ্যাত্মিক চেতনার বিকাশ ঘটে। একজন মানুষ যে ঈশ্বরের এই বিপুল ক্ষমতা সম্পর্কে জানতে পারে সে এক স্বর্গীয় আনন্দ লাভ করে।

ਧਰਮ ਖੰਡ ਕਾ ਏਹੋ ਧਰਮੁ ॥
ধরম খণ্ড কা এহো ধরমু।।
Dharam khand kaa ayho Dharam.
The moral duty of a person in Dharam khand (first stage of spiritual development) is the righteous living.
ধর্ম খন্ডে বলা সমস্ত কিছু মানুষের নৈতিক দায়িত্ব।

ਗਿਆਨ ਖੰਡ ਕਾ ਆਖਹੁ ਕਰਮੁ ॥
গিআন খন্ড কা আখহু করমু।।
gi-aan khand kaa aakhhu karam.
Now understand the working of Giaan Khand, the second stage (stage of learning of divine knowledge).
এবার জ্ঞান খন্ডের বিষয়ে বলব।

ਕੇਤੇ ਪਵਣ ਪਾਣੀ ਵੈਸੰਤਰ ਕੇਤੇ ਕਾਨ ਮਹੇਸ ॥
কেতে পবণ পাণী বোসন্তর কেতে কান মহেস।।
kaytay pavan paanee vaisantar kaytay kaan mahays.
In God’s creation, there are so many forms of winds, waters and fires; so many Krishnas and Shivas.
আকালপুরখের রচনায় অনেক প্রকার বায়ু, জল অগ্নি আছে, অনেক প্রকার কৃষ্ণ আছে শিব আছে।

ਕੇਤੇ ਬਰਮੇ ਘਾੜਤਿ ਘੜੀਅਹਿ ਰੂਪ ਰੰਗ ਕੇ ਵੇਸ ॥
কেতে বরমে ধাড়তি ধাড়িঅহি রুপ রঙ্গ কে বেস।।
kaytay barmay ghaarhat gharhee-ahi roop rang kay vays.
So many Brahmas are being fashioned in countless forms and colors.
অনেক ব্রহ্মা তৈরি হচ্ছে যার অনেক রুপ অনেক রঙ অনেক বেশভূষা। ইশ্বরের সৃষ্টির ক্ষমতা অসীম।

ਕੇਤੀਆ ਕਰਮ ਭੂਮੀ ਮੇਰ ਕੇਤੇ ਕੇਤੇ ਧੂ ਉਪਦੇਸ ॥
কেতীআ করম ভুমী মের কেতে কেতে ধু ওপদেশ।।
kaytee-aa karam bhoomee mayr kaytay kaytay Dhoo updays.
There are many earths and many mountains where people perform their duties, and there are many saints like Dhru and many are their teachings to learn.
আকালপ্রখের সৃষ্ট এই জগতে অনেক পাহাড় পর্বত মরু আছে। এখানে ধ্রু র মতো অনেক সাধু আছে এবং অনেক কিছু শেখার আছে।

ਕੇਤੇ ਇੰਦ ਚੰਦ ਸੂਰ ਕੇਤੇ ਕੇਤੇ ਮੰਡਲ ਦੇਸ ॥
কেতে ইন্দ চন্দ সুর কেতে কেতে মন্ডল দেস।।
kaytay ind chand soor kaytay kaytay mandal days.
There are many Indras, moons, suns and many planetary systems.
অনেক ইন্দ্র দেবতা, চাঁদ, সূর্য এবং অনেক ভবন চক্র আছে।

ਕੇਤੇ ਸਿਧ ਬੁਧ ਨਾਥ ਕੇਤੇ ਕੇਤੇ ਦੇਵੀ ਵੇਸ ॥
কেতে সিধ বুধ নাথ কেতে কেতে দেবী বেস।।
kaytay siDh buDh naath kaytay kaytay dayvee vays.
There are many saints with spiritual powers, many wise people,many yogis and many goddess in different forms.
অনেক সাধু অনেক বুদ্ধ অবতার আছে। অনেক নাথ অনেক দেবী আছে।

ਕੇਤੇ ਦੇਵ ਦਾਨਵ ਮੁਨਿ ਕੇਤੇ ਕੇਤੇ ਰਤਨ ਸਮੁੰਦ ॥
কেতে দেব দানব মুনি কেতে কেতে রতন সমুন্দ।।
kaytay dayv daanav mun kaytay kaytay ratan samund.
There are so many pious people, so many demons, so many silent sages and so many oceans of jewels.
আকালপুরখের রচনায় অনেক দেবতা আছে অনেক দানব আছে।

ਕੇਤੀਆ ਖਾਣੀ ਕੇਤੀਆ ਬਾਣੀ ਕੇਤੇ ਪਾਤ ਨਰਿੰਦ ॥
কেতীআ খানী কেতীআ বাণী কেতে পাত নরিন্দ।।
kaytee-aa khaanee kaytee-aa banee kaytay paat narind.
There are so many sources of life, languages, and so many kings and emperors.
অনেক প্রকার রত্ন এবং সমুদ্র আছে। অনেক খনি আছে। জীবের ইনেক বানী আছে। অনেক রাজা বাদশাহ আছে।

ਕੇਤੀਆ ਸੁਰਤੀ ਸੇਵਕ ਕੇਤੇ ਨਾਨਕ ਅੰਤੁ ਨ ਅੰਤੁ ॥੩੫॥
কেতীআ সুরতী সেবক কেতে নানক অন্তু ন অন্তু।।
kaytee-aa surtee sayvak kaytay naanak ant na ant. ||35||
There are so many intuitive people, so many selfless servants. O ‘ Nanak, there is no end to the creation of God.
অনেক সেবক আছে। হে নানক! যার কেউ কোনো শেষ পায় না।

Stanza 36
In this stanza, Guru Nanak describes the third stage of spiritual development – Saram Khand or the stage of spiritual effort. With the recognition of purpose and duty in Dharam Khand and realization of the vastness of God’s Creation in Giaan Khand, one works hard to ascend further into this stage where the mind and soul become pure, pious and one with God.

স্তবকঃ ৩৬
এই স্তবকে গুরু নানক আধ্যাত্মিক উন্নতির তৃতীয় পর্যায়ের কথা বলছেন। শরম খন্ড বা আধ্যাত্মিক প্রচেষ্টার পর্যায়। ধর্ম খন্ডের কর্তব্য ও প্রয়োজনীয়তাকে চিহ্নিত করে এবং জ্ঞান খন্ডের মধ্যে দিয়ে ঈশ্বরের সৃষ্টির বৃহৎ কে জানার পর একজন কঠোর পরিশ্রম করে এই পর্যায়ে উন্নীত হওয়ার জন্য। যেখানে মন এবং আত্মা শুদ্ধ হয় এবং ঈশ্বরের সাথে মিলিত হয়।

ਗਿਆਨ ਖੰਡ ਮਹਿ ਗਿਆਨੁ ਪਰਚੰਡੁ ॥ ਤਿਥੈ ਨਾਦ ਬਿਨੋਦ ਕੋਡ ਅਨੰਦੁ ॥
গিআন খন্ড মহি গিআনু পরচন্ডু।। তিথো নাদ বিনোদ কোই আনন্দু।।
gi-aan khand meh gi-aan parchand. tithai naad binod kod anand.
In the stage of Giaan Khand, the effect of divine knowledge is extremely powerful.In this state, one feels bliss and joy as if one is listening to the music of many melodies and watching all sort of entertainment
জ্ঞান খন্ডে মানুষের জ্ঞানই প্রধান। এই অবস্থায় সমস্তরঙ তামাশা চমৎকারের আনন্দ পাওয়া যায়।